বৃহস্পতিবার ভোর ৫:১৪, ১৭ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ. ২৮শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ ইং

সময়ের আবু বকর ও কিছু কথা -পলি আক্তার

৬৪২ বার পড়া হয়েছে
মন্তব্য ০ টি

এক সময়ের শিক্ষা-সাহিত্য-সংস্কৃতির পাদপীঠ খ্যাত ব্রাহ্মণবাড়িয়া; সময়ের বিবর্তনে আজ সামাজিক অবক্ষয় চরম আকার ধারণ করেছে। ঠিক সময়ের এমন দুঃসময়ে এসে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার হাজারো তরুণ তরুণী মানবতার কল্যাণে কাজ করতে মাঠে নেমে পড়েছে ।

কেউ চায় পরিচ্ছন্ন থাকুক আমাদের প্রিয় ব্রাহ্মণবাড়িয়া, কেউ চায় একটি মানুষও যেন না থাকে অসচ্ছল। কেউ কেউ আবার শীতার্ত মানুষের পাশে দাড়াচ্ছেন অবলীলায়। অন্য দিকে কেউ চায়- মাদকমুক্ত হোক ব্রাহ্মণবাড়িয়া। আবার অনেকেই চায় রক্তের অভাবে যেন না হারায় একটি প্রাণও। আবার আবু বকর এর মতো মানবতাবাদী তরুণরা চায় পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন থাকুক প্রাণের এই শহর।

আবার এই বকররাই গ্রামের পর গ্রাম ছুটে চলছে খেটে খাওয়া অসহায় মানুষের সন্ধানে- কখনো কারো হাতে তুলে দিচ্ছেন নগদ অর্থ, কখনোবা খাদ্যসামগ্রী নিয়ে ছুটে যাচ্ছেন মানুষের দুয়ারে-দুয়ারে । ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা উপজেলার শীমরাইল গ্রামে জন্মগ্রহণ করা আবু বকর সিদ্দিক পড়াশোনায় বেড়ে উঠছে এই ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহরেই ।

বাবা মায়ের বড় সন্তান ও পরিবারের বড় সন্তান যেমনটা সহজ সরল, সাদা এবং বড় মনে অধিকারী তথা পরোপকারী হয়, আবু বকরও এর ব্যতিক্রম নয়। পড়াশোনার পাশাপাশি তার চিন্তা-চেতনা ছিলো এই দেশ ও সমাজকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া। আর সেই চিন্তা থেকেই একদল উদ্যমী তরুণ-তরুণীদের নিয়ে ২০১৭ সালে গড়ে তুলেন ‘ক্লিন ব্রাহ্মণবাড়িয়া’ নামক একটি স্বেচ্ছাসেবী সামাজিক সংগঠন ।

সমাজ, দেশ ও আমাদের চারপাশকে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখাসহ বিভিন্ন সময় অসহায় হতদরিদ্র মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন। কখনো নীরবে আবার কখনো প্রকাশ্যে কাজ করে যাচ্ছেন তিনি।

এভাবে ক্লিন ব্রাহ্মণবাড়িয়া স্বপ্নদ্রষ্টা মোঃ আবু বকর সিদ্দিক ছোট বড় সকলের দোয়া ও ভালোবাসায় প্রিয় মানুষ বনে যান। এই স্বপ্নবাজ ফুটবলপ্রেমী তরুণকে যখন আমি দেখি, আমার বাড়ির সামনে দিয়ে, নিজের সুখ শান্তিকে পদদলিত করে, কম্বল নিয়ে ছুটে চলে গ্রামের প্রত্যন্ত অঞ্চলে। তখন এসব মানবতারবাদী তরুণ তরুণীদের নিয়ে নতুন করে আগামীর স্বপ্ন দেখার ইচ্ছে জাগতেই পারে।

আবু বকরের মত স্বার্থহীন তরুণরা নিজের জন্য জন্মায় না। ওরা জন্মায় দেশ ও দেশের মানুষের জন্য। তাদের কর্মকাণ্ডগুলো যে কাউকেই মানবিক কাজে অনুপ্রেরণা জোগাবে বলে আমার দৃঢ় বিশ্বাস। অন্যদিকে ক্লিন ব্রাহ্মণবাড়িয়া- কাজের মাধ্যমেই সংগঠনের প্রাণ-কর্মীদের লক্ষ ও উদ্যেশ্য আজ প্রস্ফুটিত হয়ে উঠেছে ব্রাহ্মণবাড়িয়াবাসীর কাছে ।

আবু বকর ভাই শুধু ক্লিন ব্রাহ্মণবাড়িয়াই নয়, এর বাইরেও তিনি নীরবে নিভৃতে নিজেকে অপ্রকাশিত রেখে সমাজ ও মানুষের জন্য নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে অনবরত। নামের সাথে কাজের এই মিল আমাকে ভীষণভাবে নাড়া দিয়েছে। সত্যিই প্রিয় আবু বকর ভাই, তোমরাই পারবে আগামীতে নতুন ভাবে সাজিয়ে তুলতে।

তোমাদের প্রতি রইল আমার নিরন্তর ভালবাসা। সুন্দর ও স্বার্থক হোক তোমার ও তোমার ক্লিন ব্রাহ্মণবাড়িয়া পরিবারের আগামীর পথ চলা- এই প্রত্যাশায়।।

লেখক: পলি আক্তার

প্রতিষ্ঠাতা ও সভাপতি
উৎসর্গ ফাউন্ডেশন, ব্রাহ্মণবাড়িয়া

Some text

ক্যাটাগরি: মতামত

[sharethis-inline-buttons]

Leave a Reply

আমি প্রবাসী অ্যাপস দিয়ে ভ্যাকসিন…

লঞ্চে যৌন হয়রানি