শুক্রবার সকাল ১০:৪৩, ১০ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ. ২৪শে মে, ২০২৪ ইং

ব্যক্তি উদ্যোগে হাসপাতাল ও রেলস্টেশনে বেসিন স্থাপন

৫৮৫ বার পড়া হয়েছে
মন্তব্য ০ টি

করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে আতঙ্কিত না হয়ে নিজেকে ও পরিবারকে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার মাধ্যমে সুরক্ষিত রাখার চেষ্টা করুন। আপনার সচেতনতাই সুরক্ষা দিতে পারে আপনাকে, আপনার পরিবারকে, আপনার চারপাশের মানুষকে এমনকি দেশকে।

নিজ অর্থায়নে জয়পুরহাটের আক্কেলপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে মূল গেটে ও আক্কেলপুর রেল ষ্টেশনের প্লাটফর্মের উপরে হাত ধোয়ার জন্য দুটি করে বেসিন বসিয়ে এর উদ্বোধনকালে জেলা পরিষদের সদস্য আব্দুর রহিম স্বাধীন মাষ্টার এসব কথা বলেন।

সরেজমিনে দেখা যায়, আক্কেলপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও রেল ষ্টেশনের প্লাটফর্মে আগতরা সবাই ভেতরে প্রবেশের আগেই প্রধান ফটকের সামনে রাখা বেসিনে সাবান, হ্যান্ডওয়াশ ও পানি দিয়ে দুই হাত ভালোভাবে ধুয়ে প্রবেশ করছেন। করোনা প্রতিরোধে জেলা পরিষদের ওই সদস্যের এ উদ্যোগকে সাধারণ মানুষ স্বাগত জানিয়েছেন।

চিকিৎসা নিতে আসা আরিফুর রহমান বলেন, স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রবেশের আগে দেখলাম হাত ধোয়ার ব্যবস্থা রয়েছে। তাই আমি সাবান দিয়ে ভালোভাবে হাত ধুয়ে ভেতরে প্রবেশ করেছি এবং বাহিরে যাওয়ার পরেও হাত ধুয়ে চলে যাব। এটা খুবই  ভাল  উদ্যোগ।

ট্রেনযাত্রী আব্দুল জলিল বলেন, ট্রেন থেকে নামতেই এক চিকিৎসক এগিয়ে এসে বললেন ২০ সেকেন্ড হাত ভালো করে ধুতে। এখানে সেই ব্যবস্থা থাকায় আমি সহজেই হাত দুটো ধুয়ে নিলাম। এতে করে নিজেকে জীবানুমুক্ত রাখার সুযোগ পেলাম।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. রাধেশ্যাম আগরওয়ালা বলেন, জেলা পরিষদের সদস্য স্বাধীন নিজ উদ্যোগে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আগত লোকজনদের হাত ধোয়ার ব্যবস্থা করেছেন । লোকজন এখন আমাদের এখানে হাত ধুয়ে প্রবেশ করছেন এবং বের হওয়ার পরেও হাত ধোয়ার সুযোগ পাচ্ছেন। তার নিঃস্বার্থ এ উদ্যোগকে আমি স্বাগত জানাই।

রেল ষ্টেশনের সহকারী ষ্টেশন মাষ্টার হাসিব হোসেন বলেন, ব্যাক্তি উদ্যোগে শনিবার রাতে ষ্টেশনের প্লাটফর্মের উপরে দুটি বেসিন লাগানো হয়েছে এবং সেখানে ডেটল সাবান দিয়ে হাত ধোয়ার ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। নিঃসন্দেহে এটি একটি প্রশংসনীয় উদ্যোগ।

এ প্রসঙ্গে জেলা পরিষদের সদস্য আব্দুর রহিম স্বাধীন বলেন, এই উপজেলার মানুষকে করোনা ভাইরাস থেকে মুক্ত রাখতে এবং মানুষকে পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য এ উদ্যোগ নিয়েছি।  এতে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আগত রোগী ও তার স্বজনেরা এবং ট্রেনযাত্রীরা জীবাণুমুক্ত হতে পারবেন। আমার বিশ্বাস এটি দেখে সাধারণ মানুষ সচেতন হবেন করোনাভাইরাস মোকাবেলায়।

শফিউল বারী রাসেল : জয়পুরহাট প্রতিনিধি

Some text

ক্যাটাগরি: খবর, নাগরিক সাংবাদিকতা

[sharethis-inline-buttons]

Leave a Reply

আমি প্রবাসী অ্যাপস দিয়ে ভ্যাকসিন…

লঞ্চে যৌন হয়রানি