মঙ্গলবার রাত ১২:০৫, ১৪ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ. ২৭শে মে, ২০২৪ ইং

ময়লার দুর্গন্ধে অতিষ্ঠ পুরো ব্রাহ্মণবাড়িয়ার মানুষ

৬৫৩ বার পড়া হয়েছে
মন্তব্য ০ টি

পরিস্কার-পরিছন্ন পরিবেশের জন্য বহু পূর্ব থেকেই মহকুমা শহর তিতাস বিধৌত ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বেশ সুনাম ছিল। বিদেশী অতিথিরা ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বেরিয়ে দূর-দুরান্তের মানুষের নিকট পরিস্কার-পরিছন্ন শহর হিসেবে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার শহরের প্রসংসা করত। দেশ বিভক্তির পর বিশ্ববিখ্যাত সংগীত সাধক ওস্তাদ আলাউদ্দিন খান, পন্ডিত রবীশংকর,পন্ডিত উদয় শংকর, প্রখ্যাত সুরকার শচিনদেব বমর্ন এবং দেশ স্বাধীনতার পর ওস্তাদ আলী আকবর খান, নিখিল ব্যানার্জী, প্রখ্যাত চলচ্চিত্র পরিচালক ঋত্বিক কুমার ঘটক, প্রখ্যাত অভিনেতা উৎপল দত্তসহ আরো অনেক বিদেশী অতিথিরা ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সফরে এসে বিভিন্ন জলসা ও সেমিনারে সাজানো-গোছানো, পরিস্কার-পরিছন্ন শহর হিসেবে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার প্রচুর প্রসংসা করে গেছেন। কিন্তু কালের বিবর্তনে পৌরসভার পালাবদলের সঙ্গে সঙ্গে পাল্টে গেছে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা শহরের দৃশ্যপট। প্রসংসা তো দূরের কথা-এখন ময়লা-আর্বজনা মাড়িয়ে এমনকি বর্জ্যের প্রকট গন্ধ সহ্য করে প্রতিনিয়ত সড়ক-মহাসড়কে চলাচল করতে হচ্ছে নগরবাসীকে।

আজ থেকে প্রায় ২৫ বছর আগে এই নগরী ছিল পরিস্কার-পরিছন্ন। ভোরের সূর্যের আলো ফোটার আগেই পরিস্কার হয়ে যেত নগরীর সব ময়লা-আর্বজনা। এ কারনে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সুনাম ছড়িয়ে পড়ে ছিল দেশ-বিদেশের সবর্ত্র। কিন্তু বর্তমানে প্রধান প্রধান সড়কসহ য়ততত্র জমে থাকে ময়লা আবর্জনার স্তুপ। সময়মতো সেগুলো অপসারনে ব্যর্থ কর্তৃপক্ষ।ময়লার ভাগার থেকে দুগর্ন্ধ ছড়াচ্ছে প্রতিনিয়ত। পথচারী, শিশু শিক্ষার্থীসহ সব বয়সের মানুষ বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় চরমভাবে ক্ষুদ্ধ ও বিরক্ত। ময়লার বিশ্রি গন্ধে অতিষ্ঠ ব্রাহ্মণবাড়িয়াবাসী। পৌরসভা কর্তৃপক্ষ নগরীর বিভিন্ন এলাকায় গুরুত্বপূর্ন স্থানে ময়লা ফেলার কারনে একদিকে দুষিত হচ্ছে পরিবেশ অপরদিকে ময়লার পচা পানি সড়কে উপচে  উটকু গন্ধে নাকাল নগরবাসী। সড়কের পাশ দিয়ে পথচারীরা হাঁটার সময় নিঃশ্বাস বন্ধ করে নাক চেপে হাঁটছে, আর শহরের এই নোংরা চিত্র কবে পরিবতর্ন হবে তা ভাবছে।

সরেজমিনে দেখা যায়, ব্রাহ্মণবাড়িয়া-ঢাকা মহাসড়কের পাশে মধ্যপাড়া, দাড়িয়াপুর সড়ক, বিরাশার সড়ক, মৌলভী পাড়ার পুকুর, মধ্যপাড়া রাইস মিল পুকুর, তিতাস পাড়া, গোকর্ণ ঘাট সড়ক, ভাদুঘরসহ আরো বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ সড়কে ময়লা ফেলার কারণে চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। ইতিমধ্যে মধ্যপাড়া সড়ক, বিরাশার খাল ও তিতাস পাড়া এলাকা ময়লা-আবর্জনা দিয়ে সম্পূর্ণরূপে ভরাট করে স্থানীয় প্রভাবশালীরা  উক্ত সরকারী জায়গা গুলো নিজেদের দখলে নিয়ে গেছে। এছাড়াও বর্তমানে পৌরসভার পরিছন্ন কর্মীরা মাসে দু’বার নর্দমা পরিস্কার করে আর বাসা-বাড়ীর ময়লা নিয়ে যান সপ্তাহে দু’বার। এতে কিন্তু নগরীর রাস্তা-ঘাট, নর্দমা ও বাসা-বাড়ীর ময়লা আবর্জনা সম্পূর্নরুপে পরিস্কার-পরিছন্ন হচ্ছে না। ফলে ব্যবসায়ী,পথচারী ও পরিবহন যাত্রীরা চরম ভোগান্তীর শিকার হচ্ছে। নগরবাসী আশা করে ছিলেন নতুন মেয়র মিসেস নায়ার কবির দায়িত্ব নেওয়ার পরে এই সমস্যা অনেকটাই কমে আসবে। কিন্তু জনগণের সেই আশা অপূর্নই থেকে গেলো।

খায়রুল আকরাম খান : ব্যুরো চীফ, দেশ দর্শন

Some text

ক্যাটাগরি: খবর, নাগরিক সাংবাদিকতা

[sharethis-inline-buttons]

Leave a Reply

আমি প্রবাসী অ্যাপস দিয়ে ভ্যাকসিন…

লঞ্চে যৌন হয়রানি