সোমবার রাত ২:০০, ১০ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ. ২৩শে জুন, ২০২৪ ইং

ভারত পাকিস্তান উত্তপ্ত : যুদ্ধ যে কোনো সময়

৮৭১ বার পড়া হয়েছে
মন্তব্য ০ টি

 পাকিস্তানে আটক ভারতীয় পাইলট অভিনন্দনকে মুক্তি দেয়ার পর কাশ্মীরের নিয়ন্ত্রণ রেখা বরাবর আবারো গোলাগুলি শুরু হয়েছে। এই বন্দুকযুদ্ধে আবারো ভারতীয় ৪ সেনা নিহত

ভারত অধিকৃত কাশ্মীরে বিচ্ছিন্নতাবাদী যোদ্ধাদের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে ভারতীয় আধাসামরিক বাহিনী সিআরপিএফের দুই জওয়ান ও রাজ্য পুলিশের দুই সদস্য নিহত হয়েছে। রোববার কুপওয়ারা জেলার হান্দওয়ারা এলাকার এই বন্দুকযুদ্ধে এক বেসামরিক কাশ্মীরিও নিহত হন বলে আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যম জানায়।

এ নিয়ে তৃতীয় দিনের মতো কুপওয়ারা জেলায় বিচ্ছিন্নতাবাদীদের বিরুদ্ধে অভিযান চালাচ্ছে ভারতীয় বাহিনী। এখন পর্যন্ত কতজন বিচ্ছিন্নতাবাদী নিহত হয়েছেন কিংবা লুকিয়ে আছেন তা জানাতে পারেনি পুলিশ। তল্লাশি অভিযান অব্যাহত রয়েছে। শুক্রবার এই অভিযানে সিআরপিএফের আরও চার সদস্য নিহত হন। নিহত হয়ে পড়ে থাকার ভান ধরে এক বিচ্ছিন্নতাবাদী যোদ্ধা আকস্মিক গুলিবর্ষণ শুরু করলে তারা নিহত হন।

বিচ্ছিন্নতাবাদীদের খোঁজে ভারতীয় বাহিনীর একটি বাড়ি ঘেরাও করে ফেললে এই সংঘর্ষের সূত্রপাত হয়। অবশ্য পরবর্তী একটি গণমাধ্যম জানায়, প্রায় ৬০ ঘণ্টার অভিযানে নিরাপত্তা বাহিনীর মোট পাঁচ সদস্য নিহত হন। শুক্রবার আহত এক সিআরপিএফ জওয়ান মারা যান আজ। এই অভিযানে এক কমান্ডারসহ আরও আটজন আহত হন।

পাকিস্তানের বালাকোটে বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠন জইশ-ই-মুহাম্মদের কথিত ঘাঁটিতে ভারতীয় বিমান হামলা এবং পরবর্তীতে ভারতীয় বিমান ভূপাতিত ও পাইলট আটকের জেরে দুদেশের মধ্যে যুদ্ধাবস্থার মধ্যেই কাশ্মীরে সংঘাত অব্যাহত রয়েছে।

এর আগে গত ১৪ ফেব্রুয়ারি এই জেলায় সিআরপিএফ গাড়িবহরে এক আত্মঘাতী গাড়িবোমা হামলায় কমপক্ষে ৪৯ জন সিআরপিএফ সদস্য নিহত হন। আহত হন আরও ডজনখানেক। এ ঘটনায় গোটা ভারতে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে।

পাকিস্তানে আটক ভারতীয় পাইলট অভিনন্দন বর্তমানকে মুক্তি দেয়ার পর কাশ্মীরের নিয়ন্ত্রণ রেখা বরাবর আবারো গোলাগুলি শুরু হয়েছে। পাকিস্তান ও ভারতীয় বাহিনীর মধ্যে  রাত থেকে শুরু হওয়া গোলা বিনিময় রবিবারও চলছে। এতে গত শুক্রবার ৭ জন নিহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। নিহতদের দুইজন পাকিস্তানের সেনা বলে নিশ্চিত করেছে দেশটির সেনাবাহিনী।   

আল-জাজিরা জানায়, পাকিস্তানের ছোড়া মর্টার শেলে ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরে একই পরিবারের তিন জন মারা গেছে। অন্যদিকে ভারত বোমাবর্ষণ করে পাকিস্তান নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরের নাকিয়াল এলাকায়। সেখানে দুই বেসামরিক নাগরিক মারা যান।

পাকিস্তান সেনাবাহিনী এক বিৃবৃতিতে জানিয়েছে, পাকিস্তান নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরের নাকিয়াল এলাকা দখলকারী ভারতীয় বাহিনীর উদ্দেশ্যে গুলি ছোড়ার সময় দুই পাকিস্তানি সেনা নিহত হয়েছে।

কাশ্মীরের পুলওয়ামাতে হামলাকে কেন্দ্র করে ভারত পাকিস্তানের মধ্যে চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে। এই হামলার জবাব দিতে পাকিস্তানের সীমানা ভেদ করে গত ২৬ ফেব্রুয়ারি বালাকোটে হামলা চালায় ভারতীয় সেনাবাহিনী। ভারতের দাবি হামলায় অন্তত ৩০০ জঙ্গি নিহত হয়েছে। তবে ভারতের এমন দাবি প্রত্যাখান করে পাকিস্তান।

২৭ ফেব্রুয়ারি নিয়ন্ত্রনরেখা লঙ্ঘনের দায়ে দুইটি ভারতীয় যুদ্ধবিমান ভূপাতিত করেছে বলে দাবি করে পাকিস্তান। সেইসঙ্গে আটক করে এক ভারতীয় পাইলটকে। গত শুক্রবার সেই পাইলট অভিনন্দন বর্তমানকে ফেরত দেয় পাকিস্তান।

গত ১৪ ফেব্রুয়ারি ভারত নিয়ন্ত্রিত জম্মু-কাশ্মীরে গাড়ি বোমা হামলায় দেশটির সেন্ট্রাল রিজার্ভ পুলিশ ফোর্সের (সিআরপিএফ) ৪৯ জন সেনা নিহত হয়। হামলার দায় স্বীকার করে পাকিস্তান ভিত্তিক জঙ্গি সংগঠন জইশ-ই-মোহাম্মদ। জম্মু-কাশ্মীরে স্বাধীনতার পর এত বড় সন্ত্রাসবাদী হামলা এর আগে হয়নি।


সায়মন ওবায়েদ শাকিল : বিশেষ প্রতিনিধি

Some text

ক্যাটাগরি: খবর

[sharethis-inline-buttons]

Leave a Reply

আমি প্রবাসী অ্যাপস দিয়ে ভ্যাকসিন…

লঞ্চে যৌন হয়রানি