শুক্রবার সকাল ১১:০৬, ১০ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ. ২৪শে মে, ২০২৪ ইং

গুরু শিষ্যের সম্পর্ক আজ কোথায়?

৮৪৬ বার পড়া হয়েছে
মন্তব্য ১ টি

অন‍্যায় করলাম শিক্ষক শাসন করলো। বাবা মা কে নিয়ে গেলাম, ভাবলাম বাবার ক্ষমতায় শিক্ষককে বাধ‍্য করতে পারবে। কিন্তু ক্ষমতা তো দুরের কথা অনুরোধ এও কাজ হলো না।বাছ বাসায় এসে সুইসাইড নোট লিখে আত্মহত্যা। এরপর বাবা মায়ের কথা শিক্ষক এর সব দোষ। তাদের ক্ষমাহীন আচরণ এর জন্য আমার ছেলে/মেয়ে এই কাজ করেছে। এর পর সবাই মিলে শিক্ষকদের ধর, সব দোষ শিক্ষকদের। কতো সহজ সমীকরণ, আত্মহত্যার মতো জঘন্য কাজ করেও পার পেলাম সেখানে তো নকল করার নাম আসবেই না। বুঝলাম শিক্ষক এতটা কঠোর না হলেও পারতেন। কিন্তু আজ ঐ মেয়েটি সুইসাইড করেছে তাই সব আঙ্গুল শিক্ষক এর দিকে। কিন্তু আত্মহত্যার কথা বাদ দিলে দোষটা কার হতো শিক্ষকদের? প্লিজ ভাই আপনারা যারা শিক্ষকদের আজ গালি দিচ্ছেন মানসিক আর শারীরিক টর্চারের কথা বলে তারা কেমন শিক্ষকদের কাছে বড় হয়েছেন জানতে খুব ইচ্ছা হচ্ছে। স্কুল আর কলেজে জীবনে শিক্ষকদের হাতে কম মার খাইনি দুষ্টুমির জন্য, কখনো কখনো হোমওয়ার্ক না নিয়ে যাওয়ার জন্য।

মনে পড়ে না বাড়ি এসে মা অথবা বাবা কে কখনো বলেছি। বরং ভয়ে থেকেছি তাদের দুজনার সাথে কখন শিক্ষকদের দেখা না হয়ে যায়। কারন শিক্ষকদের মুখ থেকে যদি জানতে পারেন আমাদের ফাঁকিবাজি অথবা দুষ্টুমির কথা উল্টো পিঠের চামড়া থাকবে না। কিন্তু সুইসাইড করবো এমন কথা স্বপ্নেও ভাবিনি, অথবা ভাবার প্রশ্নই আসেনি। এখন মাঝে মাঝে সেই শিক্ষকদের সাথে দেখা হয় দেখলে কখনো মাথায় হাত দেন আবার বুকেও জড়িয়ে ধরেন। যখন তাদের পা ধরে সালাম করি একটা তৃপ্তি আর শ্রদ্ধা আসে মনে।এই মানুষ গুলোর জন‍্যই আজকের আমরা। আর আজ তারাই অপরাধীর কাঠগড়ায়। আমাদের স্কুলের সবচেয়ে কঠিন শাস্তি পাওয়া ছেলেটাও কোনদিন আত্মহত্যার কথা ভাবেনি। কিন্তু আজ এসব কি হচ্ছে একবার ভেবেছেন আপনারা। দোষ শিক্ষকদের উপর চাপিয়ে দিচ্ছেন কিন্তু একবারও মেয়েটি এবং তার বাবা মার কথা ভেবেছেন? এতটুকু একটা মেয়ে এতো বড় সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেললো ভাবলো না বাবা মায়ের কথা, আপনজন দের কথা। বলবেন বাবা মায়ের অসম্মান দেখে এই কাজ করেছে। বাবার কথা শিক্ষক না শুনায় বাবা অসম্মান হয়েছে আর তার অন‍্যায় কিছু হয়নি।যার বাবা মার সন্মান এর এতো চিন্তা তার তো অন‍্যায় করার আগে দুইবার ভাবা উচিত। বলবেন আবেগ,ভাই তাহলে বলতে হয় এই আবেগ কে প্রশ্রয় দিলে আমাদের সমাজের ভয়ঙ্কর পরিনীতি ছাড়া
কিন্তু আর কিছুই হবেনা। একটা কথা কারো মনে দাগ কেটেছে

কিনা জানিনা কিন্তু আমার মনে লেগেছে। মেয়েটি তার বাবা কে বলেছে তুমি তোমার ক্ষমতা দিয়েও কিছু করতে পারলেনা। ভাবুন তো একবার সে অন‍্যায় করবে আর বাবা তার ক্ষমতায় থাকে সেভ করবে। কি মারাত্মক মানসিকতা অথচ এই আমরাই আবার বলি ক্ষমতার অপব্যবহার এর কথা। আজকের সমাজে আমাদের শিক্ষকদের ও নৈতিকতার অবক্ষয় হয়েছে এটা ঠিক। কিন্তু আমাদের সমাজের বাবা মা এবং তাদের সন্তানদের মানুষ করার প্রক্রিয়াটি যে অধঃপতন হয়েছে সেটা কি ভেবেছেন। কোথায় যাচ্ছি আমরা। আমাদের সেই গুরু শিষ্য সম্পর্ক আজ কোথায়? আজ অসভ্য আচরণ কে আমরা প্রতিবাদের ভাষা বলে চালাচ্ছি। বড়দের কি করে অসম্মান করতে হয় আমরা তা ভালই শিখছি। কে কি বলবেন জানিনা আমি যেটা সত্যি মনে করি সেটাই বলছি আমাদের উচিত আমাদের পরিবারের সন্তানদের সঠিক শিক্ষা দেওয়া। গোঁড়ায় গলদ রেখে আগা ছাঁটলে কোন ভালো ফল আসবে না। ঐ শিক্ষকদের শাস্তি হলে এই মেয়ের বাবা মায়ের ও শাস্তি হওয়া উচিত সন্তান কে সঠিক শিক্ষায় মানুষ না করার জন্য। কারো খারাপ লাগলে কিছু করার নেই যেটা সত্যি সেটাই আমি বলবই।।

Some text

ক্যাটাগরি: মতামত

[sharethis-inline-buttons]

১ কমেন্ট “গুরু শিষ্যের সম্পর্ক আজ কোথায়?

Leave a Reply

আমি প্রবাসী অ্যাপস দিয়ে ভ্যাকসিন…

লঞ্চে যৌন হয়রানি