শুক্রবার রাত ১১:০৩, ২৯শে চৈত্র, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ. ১২ই এপ্রিল, ২০২৪ ইং

অপটিমাম আইটিতে ফুলের বাগান

৭৩১ বার পড়া হয়েছে
মন্তব্য ০ টি

ফুলের প্রতি মানুষের আর্কষণ ও ভালোবাসা চিরকালীন। তেমনি আমারও ছোটবেলা থেকেই ফুলের প্রতি একটা মুগ্ধতা চলে আসছে। বাসার সামনে উপযুক্ত জায়গা না থাকায় সীমিত পরিবেশেই যতটুকু পারি, একটি বাগান করেছি। কিন্তু দুঃখের বিষয় আমার হাতে লাগানো ফুল গাছ বেশিদিন টেকে না । হতে পারে এটা আমার অযত্ন-অবহেলার কারণে। তাছাড়া আমাকে ফুলের বাগান নিয়ে বসে থাকলে তো আর হবে না, অন্যান্য কাজও করতে হবে।

র্বতমানে আমার রুমের সামনে বারান্দায় ও ছাদে রয়েছে নানা রকম ফুলের গাছ। আমি র্বতমানে পড়াশোনার পাশাপাশি একটি পার্টটাইম জব করি, প্রতিষ্ঠানের নাম অপটিমাম আইটি। আইটি জগতের এক বিশ্বস্ত , মানসম্মত এবং স্বনামধন্য কম্পিউটার ট্রেনিং সেন্টার। এটি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার প্রাণকেন্দ্র- টি.এ রোডের মওলা ভবনে অবস্থিত। চারতলায় অর্ধেকটা আমাদের প্রতিষ্ঠান, বাকি অর্ধেকটা উন্মুক্ত ছাদ ।

আমাদের প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান দেলোয়ার হোসাইন। তিনি ছাদে যত্ন করে ফুলের বাগান করেছেন। তিনি প্রায় প্রতিদিনই এর যত্ন নেন। সময়ে সময়ে আমরাও যত্ন করি। আর সবাই মিলে এর সৌন্দর্য উপভোগ করি।

আমি যে ডেস্কে বসি, সেখান থেকে পাঁচ-দশ হাত দূরেই ফুলের বাগান। ফুলের ঘ্রাণ উপভোগ করি। মাঝে মাঝে মন খারাপের সময় ফুলের ঘ্রাণে মন মাতাই। যখনই মন খারাপ থাকে, তখেই প্রকৃতি নিয়ে ভাবি, নিজের জন্ম-মৃত্যেু নিয়ে চিন্তা করি। ফুলের বাগানের পাশে গিয়ে দাঁড়াই। কাজের ফাঁকে যখন দৃষ্টি যায় ফুুল বাগানে তখন মুগ্ধ হাসি ফুটে মুখে।

যখনই আমার বেস্ট ফেন্ডস তৃপ্তি, তামিমা, আফনান এবং সাদিয়া আমার সাথে দেখা করতে অফিসে আসে, তাদরেকে নিযে যাই বাগান দেখাতে এবং অপটিমামের ছাদে বসে খুব জমিয়ে আড্ডা দেই। গল্প -গুজব করি। তখন ভালো লাগাটা আরো বেড়ে যায়। বিকেলের সময়টা এমনিতেই মধুময়, আবার যখন পশ্চিম আকাশে বিকেলের সূৃর্যটা হেলে পড়ে, তখন আকাশপানে চেয়ে থাকি, ছাদের পাশে দাঁড়িয়ে থেকে শহরের প্রাকৃতিক দৃশ্যাবলী অবলোকন করি।

মানুষ বাঁচার তাগিদে বাঁচে। স্বপ্ন পূরণের তাগিদে হেঁটে চলে। কিন্তু কী লাভ তাতে, বেঁচে থাকার মতো বেঁচে না থাকতে পারলে? মুখে বলা যতটা সহজ, বাস্তবে করে দেখানোটা অনেক কঠিন।

শামীমা শাম্মী : ব্রাহ্মণবাড়িয়া কলেজ

Some text

ক্যাটাগরি: আত্মজীবনী, চিন্তা, সাহিত্য

[sharethis-inline-buttons]

Leave a Reply

আমি প্রবাসী অ্যাপস দিয়ে ভ্যাকসিন…

লঞ্চে যৌন হয়রানি