সোমবার বিকাল ৩:২৫, ৬ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ. ২০শে মে, ২০২৪ ইং

ধর্ষণ -হীরা আহমেদ জাকির

৬৮৫ বার পড়া হয়েছে
মন্তব্য ০ টি

ধর্ষণ মানে নাকের ছিদ্র দিয়ে দুই আংগুল ঢুকানোর চেষ্টা, ধর্ষকের বুকে আমার হাত বাচার প্রচেষ্টা।
ধর্ষন মানে ট্রাকের ছাপায় পড়ে নিহত প্রান, স্বজনের আহাজারি মুছে যায় বংশের নিশান।
ধর্ষণ মানে ইটের ভাটায় ইট পুড়ছে অবিরত, অচল টাকার মতো অচল আমি সমাজে ঘৃণা শত।
ধর্ষণ মানে বিশাক্ত সাপের চোবলে ক্ষত বিক্ষত, বেচে থেকেও নিষ্প্রাণ জ্বলছি অবিরত।
ধর্ষণ মানে ফাশির রশিতে জুলন্ত লাশ, নাড়ী ছেড়া কষ্ট মরন যন্ত্রণা, বুকে দীর্ঘশ্বাস।

ধর্ষণ মানে নির্বিচারে বুকে গুলি, অবহেলিত জীবন বৈশাখী ঝড়ে পড়া ফুলের কলি।
ধর্ষণ মানে প্রসব ব্যথায় গর্ভবতী মায়ের চিৎকার, রক্তাত দেহে কষ্টের হাহাকার।
ধর্ষণ মানে বেচে থেকেও জীবন্ত লাশ অন্ধকারে লুকিয়ে থাকা, সবাই চলে আনন্দ উল্লাসে আমার পথ বাকা।
ধর্ষণ মানে ধর্ষিতা হাজার তারার মাঝে চাঁদ, তবু নেই আলো মিটে গেছে বেচে থাকার স্বাদ।

ধর্ষণ মানে সিমাহীন কষ্টের বসতী, সমাজে আমি ঘৃণিত অসতী।
ধর্ষণ মানে জীবিত দেহ থেকে কলিজাটা বের করা, হৃদয়বিধারক কষ্ট মরনের আগেই মরা।
ধর্ষণ মানে বোমা বিস্ফোরনে হাজার প্রান ঝড়ে যাওয়ার কষ্ট, চোখের জ্বলে নদী বয়ে যায় আলো আছে তবু দেখে অস্পষ্ট।
ধর্ষণ মানে জীবিত মানুষকে করে দেয়া দাফন, কি থেকে কি হয়েছে বলছে সবাই পর আপন।

ধর্ষণ মানে জুলুম অত্যার নির্যাতন নিপিড়নের শীকার, দেয়ালে আটকে যাওয়া পিঠ কেড়ে নেই অধিকার।
ধর্ষণ মানে কলিজা শুকিয়ে গেছে এক ফোটা পানি, জানোয়ার শুনেনা আকুতি আর বিধাতার বানী।

হীরা আহমেদ জাকির

Some text

ক্যাটাগরি: কবিতা

[sharethis-inline-buttons]

আমি প্রবাসী অ্যাপস দিয়ে ভ্যাকসিন…

লঞ্চে যৌন হয়রানি